বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪, ১২:৩৩ অপরাহ্ন

কাতার বিশ্বকাপে নারী রেফারি

স্পোর্টস ডেস্ক
  • সর্বশেষ আপডেট : রবিবার, ২০ নভেম্বর, ২০২২
  • ৯৬ বার পড়া হয়েছে /

এবার নতুন অনেক কিছুর সাথে পরিচিত হতে যাচ্ছে কাতার বিশ্বকাপ। মুসলিম জনসংখ্যার আধিক্য থাকা দেশটিতে ফুটবলের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো নারী রেফারি দিয়ে ম্যাচ পরিচালনার দোরগোড়ায় দাড়িয়ে রয়েছে বিশ্বসেরা আসরটি। আজ ২০ নভেম্বর কাতার ফুটবল বিশ্বকাপের কিক-অফ। এই প্রথম পুরুষদের ফুটবল বিশ্বকাপে রেফারি ও সহকারী রেফারি মিলিয়ে মোট ছয় জন নারী মাঠে দায়িত্বরত থাকবেন। এক কথায় ফিফা ইতিহাস লিখতে যাচ্ছে কাতারে। এ বিষয়ে ফিফা রেফারি কমিটির প্রধান ও কিংবদন্তি রেফারি পিয়েরলুইগি কলিনা নারী রেফারিদের নাম ঘোষণার সময় বলেছিলেন, ‘এখানে লিঙ্গ নয়, আমরা গুণমানেই জোর দিয়েছি, ওটাই বেশি গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের কাছে লিঙ্গ কখনোই বেশি প্রাধান্য পায়নি।’এবার কাতারে বাঁশিমুখে কড়া হাতে ম্যাচ নিয়ন্ত্রণ করবেন মোট ৩৬ জন রেফারি। নারীদের মধ্যে থাকছেন ফ্রান্সের ফ্রানেমহা স্টেফানি ফ্র্যাপার্ট, রুয়ান্ডার সালিমা মুকানসঙ্গা ও জাপানের ইয়োশিমি ইয়ামাশিতা। মোট ৬৯ জন সহকারী রেফারি থাকছেন। নারীদের মধ্যে রয়েছেন ব্রাজিলের নেউজা ব্যাক, মেক্সিকোর কারেন ডিয়াজ মেদিনা ও মার্কিন মুলুকের ক্যাথরিন নেসবিট।

ফ্রানেমহা স্টেফানি, ফ্রান্স

বর্তমান বিশ্বকাপের চ্যাম্পিয়ন দেশ ফ্রান্সের রেফারি ইতিমধ্যে ইতিহাস লিখেছেন তার ক্যারিয়ারে। ৩৮ বছরের এই রেফারি প্রথমবার নারী হিসেবে ২০১৯ সালে ফ্রান্সের লিগ ওয়ানে রেফারিং করেছেন। সে বছরই নিজের ঘরের মাঠে নারী বিশ্বকাপে খেলা চালিয়েছেন। ফ্র্যাপার্ট ২০১৯ উয়েফা সুপার কাপ ফাইনালে লিভারপুল ও চেলসি ম্যাচেও দক্ষতার সাথে বাঁশি বাজিয়েছেন। ২০২০ চ্যাম্পিয়নস লিগেও খেলা চালিয়েছেন। গত মৌসুমে ফরাসি কাপ ফাইনালেও ফ্রানেমহা স্টেফানি বাঁশি হাতে নেমেছিলেন। বিশ্বকাপে সুযোগ পাওয়া বিষয়ে ফ্র্যাপার্ট বলছেন, ‘আমি সত্যিই অনেক আনন্দিত। এমনটা প্রত্যাশা ছিল না। বিশ্বকাপের চেয়ে বড় আর কী হতে পারে?’

ইয়োশিমি ইয়ামাশিতা, জাপান

শান্তির দেশ হিসেবে পরিচিত জাপানের ২০১৯ সালে এশিয়ান চ্যাম্পিয়নস লিগ খেলানো প্রথম নারী রেফারি ইয়োশিমি ইয়ামাশিতা। ২০১৯ ফ্রান্সে আয়োজিত মেয়েদের ফুটবল বিশ্বকাপে তিনি রেফারিং করেছেন। এর পরের বছর টোকিও অলিম্পিক গেমসেও রেফারি হিসেবে ছিলেন। ফিটনেস কোচ থেকে রেফারি হওয়া নারী ইয়োশিমি ইয়ামাশিতা বলছেন, ‘বিশ্বকাপের মতো বড় মঞ্চের জন্য এটা বিরাট দায়িত্ব, যা পেয়ে আমি খুশি। এমনটা হতে পারে বলে কখনো ভাবিনি।’

সালিমা মুকানসঙ্গা, রুয়ান্ডা

আগের দুজনের দেশ বিশ্বকাপে খেললেও সালিমা মুকানসঙ্গার দেশ রুয়ান্ডা অবশ্য খেলার সুযোগ পাচ্ছেনা। ৩৪ বছরের রুয়ান্ডিয়ান চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে আফ্রিকা কাপ অব নেশনসে রেফারিং করিয়েছিলেন, নারী হিসেবে যা নজির। ফ্র্যাপার্ট ও ইয়ামাশিতার মতোই ২০১৯-এ ফ্রান্সে আয়োজিত মেয়েদের ফুটবল বিশ্বকাপে তিনি রেফারিং করেছেন। এরপর তাকে পাওয়া যায় ২০২০ টোকিও অলিম্পিক গেমসে। গুরুদায়িত্ব পেয়ে খুশি তিনিও। দেশের প্রতিনিধিত্ব করার সুযোগটাকে কাজে লাগাতে চান সালিমা।

আরো পড়ুন

এস এন্ড এফ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড © সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

Developer Design Host BD