মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ০৩:০৪ পূর্বাহ্ন

পরাজিত প্রার্থীর ভাইয়ের নেতৃত্বে উপজেলা পরিষদ ভাঙচুর

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • সর্বশেষ আপডেট : বৃহস্পতিবার, ৯ মে, ২০২৪
  • ৩৪ বার পড়া হয়েছে /

উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার পূর্বে পরাজিত আনারস প্রতীকের প্রার্থী তোফায়েল আহমেদের ছোট ভাই মনজুর আহমেদ ডনের নেতৃত্বে উপজেলা পরিষদের হলরুমের চেয়ার–টেবিল, দরজা–জানালাসহ আসবাবপত্র ভাঙচুর ও বিজয়ী প্রার্থীর সমর্থক ও সাংবাদিকদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে।

বুধবার (৮ মে) রাত সাড়ে ৯টার দিকে নীলফামারী জেলার ডোমার উপজেলা পরিষদের হলরুমে এ ঘটনা ঘটে।

এসময় সংবাদকর্মীরা তাৎক্ষণিক সড়ে গেলে হামলার হাত থেকে বেঁচে যান। তবে পরবর্তীতে আবার সাংবাদিকদের ওপর চেয়ার ছুড়ে মারেন প্রার্থীর ছোটভাই ডন। তবে লক্ষ্যভ্রষ্ট হলে আহতের হাত রক্ষা পান এ সংবাদকর্মীরা । এ সংক্রান্ত একটি ভিডিও ফুটেজ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে।

ভাইরাল হওয়া ভিডিওতে দেখা যায়, একটি চেয়ার তুলে ছুঁড়ে মারছেন ডন। সেই চেয়ারের আঘাত থেকে রক্ষা পেতে সেখানে থাকা সজ্জিত টেবিলে নিচে আশ্রয় নিতে দেখা যায় সংবাদ কর্মী সহ অনেককে ।

মনজুর আহমেদ ডন উপজেলার পশ্চিম বোড়াগাড়ী এলাকার মৃত শওকত আলীর ছেলে। তিনি নীলফামারী জেলা পরিষদের ডোমার উপজেলা সদস্য বলে জানা গেছে।

জানা গেছে, ভোটগণনা শেষে প্রতিটি কেন্দ্রের খসড়া ফলাফলে নিজেকে পরাজিত জেনে ভোটের ফলাফল স্থগিতের জন্য ছোটভাই ডনের নেতৃত্বে এ পরিকল্পিত হামলা চালান আনারস প্রতীকের প্রার্থী তোফায়েল আহমেদ। সেসময় হলরুমে উপস্থিত নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা, প্রার্থীসহ সাংবাদিকেরা ভেতরে আটকা পড়েন। ফলে সাময়িক ভাবে বন্ধ হয়ে যায় ফলাফল ঘোষণা। এ সময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ধাওয়ায় পালিয়ে যান ডন ও পরাজিত প্রার্থীর সমর্থকেরা।

পরে রাত ১১টার সময় নির্বাচন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা, উপজেলা প্রশাসন, আইনশৃংখলা বাহিনীর উপস্থিতিতে সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা নুর-ই আলম ভোটের ফল ঘোষণা করেন। এতে ৩১ হাজার ৪২১ ভোট পেয়ে সরকার ফারহানা আকতার সুমি (টেলিফোন) বেসরকারিভাবে উপজেলা চেয়ারম্যান হিসেবে নির্বাচিত হন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী তোফায়েল আহমেদ (আনারস) ২৩ হাজার ১৩৪ ভোট পান। ফল ঘোষণার পর পরাজিত প্রার্থীর সমর্থকরা উপজেলা পরিষদের মূল ফটকে আবারও হট্টগোলের সৃষ্টি করে। এ সময় পুলিশের সঙ্গে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পুলিশ তাদের ছত্রভঙ্গ করতে প্রায় ২০ রাউন্ড রাবার বুলেট ছোড়ে।

এ বিষয়ে জানতে পরাজিত প্রার্থী তোফায়েল আহমেদের সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী সরকার ফারহানা আকতার সুমি বলেন, আমার এ বিজয় ছিনিয়ে নিতে প্রতিপক্ষের লোকজন হামলা চালিয়েছে। প্রশাসনের তাৎক্ষণিক পদক্ষেপে তাদের ছত্রভঙ্গ করে এবং আমাকে ও আমার লোকজনদের হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। নির্বাচন কমিশনের কাছে এ বিষয়ে অভিযোগ করব। সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা, এ বিজয় পুরো ডোমারবাসীর।

ডোমার উপজেলা নির্বাচনের সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা নুর-ই আলম বলেন, হামলাকারীরাদের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নেওয়া হবে। এছাড়া, সিসিটিভির ফুটেজ দেখে হামলাকারিদের শনাক্ত করা হবে। ইতোমধ্যে হামলাকারীর কয়েকজন পুলিশ আটক করেছে।

আরো পড়ুন

এস এন্ড এফ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড © সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

Developer Design Host BD