শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৪:৪২ অপরাহ্ন

সিংগাইরে জমি সংক্রান্ত বিরোধ, চেয়ারম্যান-মেম্বারের উপস্থিতিতে সংঘর্ষ

সিংগাইর (মানিকগঞ্জ) প্রতিনিধি
  • সর্বশেষ আপডেট : শুক্রবার, ৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩
  • ৭৯১ বার পড়া হয়েছে / ইপেপার / প্রিন্ট ইপেপার / প্রিন্ট

মানিকগঞ্জের সিংগাইরের জামির্তা ইউনিয়নের ডাউটিয়া গ্রামে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে চেয়ারম্যানের উপস্থিতিতে উভয় পক্ষের সংঘর্ষে সাতজন গুরুতর আহত হয়েছে।বৃহস্পতিবার (২ ফেব্রুয়ারি) জামির্তা ইউনিয়নের ডাউটিয়া এলাকায় স্থানীয় চেয়ারম্যান আবুল হোসেন মোল্লা ও ইউপি সদস্য আলী হোসেনের উপস্থিতিতে এ ঘটনা ঘটে।সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার বিকেল আনুমানিক সাড়ে ৩ টার সময় ডাউটিয়া বাজার সংলগ্ন একটি জমিতে জোবেদা আক্তার ছাপড়া ঘর নির্মাণ করতে গেলে ওই একই এলাকার আমজাদ হোসেন ঘর নির্মাণ কাজে বাধা দেন। বাধা প্রদানের মধ্য দিয়েই সংঘর্ষের সূত্রপাত হয়।জোবেদা আক্তারের দাবি তিনি তার জমিতে ঘর নির্মাণ করতে গেলে হঠাৎ করেই স্থানীয় আমজাদ হোসেন ও তার ভাই বাদশা তাদেরকে জমিতে কাজ করতে বাধা দেন এবং জামির্তা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল হোসেন মোল্লা ও স্থানীয় মেম্বার আলী হোসেনের সামনেই অতর্কিত হামলা চালান মৃত হাসেমের ছেলে সন্ত্রাসী আমজাদ হোসেন (৪০) ও তার ভাই বাদশা মিয়া(৫৮)। এ সংঘর্ষে আরও জড়িত রয়েছে একই এলাকার ইসলামের ছেলে সেলিম (৩০),মৃত মোফাজ্জল হোসেন টোপার ছেলে শাহিনুর রহমান সেন্টু(৪০), মৃত আবুল কালামের ছেলে মামুন(৩৫) সহ অজ্ঞাতনামা ৭/৮ জন।হামলায় গুরুতর আহত হয়েছেন জোবেদা আক্তার সহ তার ছেলে জয় (২৪) , দিপু (২৫), ভাই আলতাফ হোসেন (৫০), জয়ের বন্ধু কামরুল (২৫),ও বৃদ্ধা মা আমেনা খাতুন (৬০)। এরপর স্থানীয়রা তাদেরকে উদ্ধার করে সিংগাইর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার সকলকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকাস্থ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন।ভুক্তভোগী জোবেদা আক্তার গণমাধ্যমকে আরো বলেন, এরা বর্তমান চেয়ারম্যান আবুল হোসেন মোল্লার নেতৃত্বে জামির্তা ইউনিয়নে দীর্ঘদিন ধরে জমি দখলসহ সন্ত্রাসী কার্যক্রম চালিয়ে আসছেন, তারা জামির্তা ইউনিয়নের চিহ্নিত সন্ত্রাসী , তাদের কারো কোন নিজস্ব ব্যবসা নেই, শুধুমাত্র জামির্তা ইউনিয়নে বিভিন্ন লোকদের জমি দখল , চাঁদাবাজি,বিচার সালিশ করে টাকা নেয়া ও সন্ত্রাসী কার্যক্রম তাদের উপার্জনের একমাত্র রাস্তা । এীময় তিনি বলেন, গত কয়েকদিন আগে এই সন্ত্রাসী বাহিনী তার কাছ থেকে বিভিন্নভাবে চাঁদা দাবি করে করে আসছিলেন, তাই তিনি গত বৃহস্পতিবার ২ ফেব্রুয়ারি সিংগাইর থানায় এ বিষয়ে একটি অভিযোগ দায়ের করেছিলেন।এ বিষয়ে প্রতিপক্ষ আমজাদ হোসেনের দাবি, জোবেদা যে জমিতে ঘর নির্মাণ করছিলেন এটা তাদের ক্রয়-কৃত সম্পত্তি। জমিতে ঘর নির্মাণে বাধা দিতে গেলে জোবেদা ও তাদের সন্ত্রাসী বাহিনী তাকে ও তার ভাই বাদশা মিয়ার উপর অতর্কিত হামলা চালালে তারা গুরুতর জখম হয়, তারপর স্থানীয়রা আমজাদ হোসেন ও তার ভাই বাদশা মিয়া কে উদ্ধার করে সিংগাইর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক বাদশা মিয়া কে উন্নত চিকিৎসার জন্য অন্যত্র পাঠিয়ে দেন।এ বিষয়ে সিংগাইর থানায় জোবেদা আক্তারের ভাই আলতাফ হোসেন বাদী হয়ে ৫ জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন।তবে এ বিষয়ে সিংগাইর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সফিকুল ইসলাম মোল্লা জানান, অভিযোগ পেয়েছি অভিযোগের ভিত্তিতে মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।মানিকগঞ্জের সিংগাইরের জামির্তা ইউনিয়নের ডাউটিয়া গ্রামে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে চেয়ারম্যানের উপস্থিতিতে উভয় পক্ষের সংঘর্ষে সাতজন গুরুতর আহত হয়েছে।বৃহস্পতিবার (২ ফেব্রুয়ারি) জামির্তা ইউনিয়নের ডাউটিয়া এলাকায় স্থানীয় চেয়ারম্যান আবুল হোসেন মোল্লা ও ইউপি সদস্য আলী হোসেনের উপস্থিতিতে এ ঘটনা ঘটে।সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার বিকেল আনুমানিক সাড়ে ৩ টার সময় ডাউটিয়া বাজার সংলগ্ন একটি জমিতে জোবেদা আক্তার ছাপড়া ঘর নির্মাণ করতে গেলে ওই একই এলাকার আমজাদ হোসেন ঘর নির্মাণ কাজে বাধা দেন। বাধা প্রদানের মধ্য দিয়েই সংঘর্ষের সূত্রপাত হয়।জোবেদা আক্তারের দাবি তিনি তার জমিতে ঘর নির্মাণ করতে গেলে হঠাৎ করেই স্থানীয় আমজাদ হোসেন ও তার ভাই বাদশা তাদেরকে জমিতে কাজ করতে বাধা দেন এবং জামির্তা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল হোসেন মোল্লা ও স্থানীয় মেম্বার আলী হোসেনের সামনেই অতর্কিত হামলা চালান মৃত হাসেমের ছেলে সন্ত্রাসী আমজাদ হোসেন (৪০) ও তার ভাই বাদশা মিয়া(৫৮)। এ সংঘর্ষে আরও জড়িত রয়েছে একই এলাকার ইসলামের ছেলে সেলিম (৩০),মৃত মোফাজ্জল হোসেন টোপার ছেলে শাহিনুর রহমান সেন্টু(৪০), মৃত আবুল কালামের ছেলে মামুন(৩৫) সহ অজ্ঞাতনামা ৭/৮ জন।
হামলায় গুরুতর আহত হয়েছেন জোবেদা আক্তার সহ তার ছেলে জয় (২৪) , দিপু (২৫), ভাই আলতাফ হোসেন (৫০), জয়ের বন্ধু কামরুল (২৫),ও বৃদ্ধা মা আমেনা খাতুন (৬০)। এরপর স্থানীয়রা তাদেরকে উদ্ধার করে সিংগাইর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার সকলকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকাস্থ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন।ভুক্তভোগী জোবেদা আক্তার গণমাধ্যমকে আরো বলেন, এরা বর্তমান চেয়ারম্যান আবুল হোসেন মোল্লার নেতৃত্বে জামির্তা ইউনিয়নে দীর্ঘদিন ধরে জমি দখলসহ সন্ত্রাসী কার্যক্রম চালিয়ে আসছেন, তারা জামির্তা ইউনিয়নের চিহ্নিত সন্ত্রাসী , তাদের কারো কোন নিজস্ব ব্যবসা নেই, শুধুমাত্র জামির্তা ইউনিয়নে বিভিন্ন লোকদের জমি দখল , চাঁদাবাজি,বিচার সালিশ করে টাকা নেয়া ও সন্ত্রাসী কার্যক্রম তাদের উপার্জনের একমাত্র রাস্তা । এীময় তিনি বলেন, গত কয়েকদিন আগে এই সন্ত্রাসী বাহিনী তার কাছ থেকে বিভিন্নভাবে চাঁদা দাবি করে করে আসছিলেন, তাই তিনি গত বৃহস্পতিবার ২ ফেব্রুয়ারি সিংগাইর থানায় এ বিষয়ে একটি অভিযোগ দায়ের করেছিলেন।এ বিষয়ে প্রতিপক্ষ আমজাদ হোসেনের দাবি, জোবেদা যে জমিতে ঘর নির্মাণ করছিলেন এটা তাদের ক্রয়-কৃত সম্পত্তি। জমিতে ঘর নির্মাণে বাধা দিতে গেলে জোবেদা ও তাদের সন্ত্রাসী বাহিনী তাকে ও তার ভাই বাদশা মিয়ার উপর অতর্কিত হামলা চালালে তারা গুরুতর জখম হয়, তারপর স্থানীয়রা আমজাদ হোসেন ও তার ভাই বাদশা মিয়া কে উদ্ধার করে সিংগাইর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক বাদশা মিয়া কে উন্নত চিকিৎসার জন্য অন্যত্র পাঠিয়ে দেন।এ বিষয়ে সিংগাইর থানায় জোবেদা আক্তারের ভাই আলতাফ হোসেন বাদী হয়ে ৫ জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন।তবে এ বিষয়ে সিংগাইর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সফিকুল ইসলাম মোল্লা জানান, অভিযোগ পেয়েছি অভিযোগের ভিত্তিতে মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

আরো পড়ুন

এস এন্ড এফ মিডিয়া কমিউনিকেশন লিমিটেড © সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

Developer Design Host BD